Hathazari Sangbad
হাটহাজারীরবিবার , ১৭ ডিসেম্বর ২০২৩

কাগতিয়া মাদরাসায় বিজয় দিবস উদযাপন, বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা এবং অভিভাবক সমাবেশ

হাটহাজারী সংবাদ ডেস্ক:
ডিসেম্বর ১৭, ২০২৩ ৭:১৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের রাউজানস্থ কাগতিয়া এশাতুল উলুম কামিল এম. এ. মাদরাসার আল- ফজল মুনিরী গাউছুল আজম সম্মেলন কক্ষে ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস-২০২৩ উদযাপন এবং বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

উপাধ্যক্ষ আল্লামা মুহাম্মদ বদিউল আলম আহমদীর সভাপতিত্বে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হয় আলোচনা সভা। এতে বক্তব্য রাখেন ইংরেজি প্রভাষক তারেকুল ইসলাম, আরবি প্রভাষক মাওলানা মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ মোবারক,  মাওলানা মুহাম্মদ গোলাম রব্বানী প্রমুখ। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত কর্মসূচির মধ্যে ছিল ফাতেহা শরীফ আদায়, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, দীর্ঘ নয়মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে নিহত ত্রিশ লক্ষ শহীদ এবং দুই লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত হয় এ মহান বিজয়। তারা শহীদদের রক্তে অর্জিত এ স্বাধীন দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় শিক্ষক, ছাত্র, ব্যবসায়ী, কৃষক, শ্রমিক নির্বিশেষে জনগণকে সজাগ থাকার জন্য উদাত্ত আহবান জানান।  মুক্তিযুদ্ধে নিহত সকল মুক্তিযোদ্ধা এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। বক্তারা আরও বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি বাংলাদেশের ইতিহাসকে, বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে স্তব্ধ করার ষড়যন্ত্র এখনো অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁর মেধা, প্রজ্ঞা ও সাহসিকতা দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর রেখে যাওয়া স্বপ্নকে বাস্তবায়নে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। মাদ্রাসার সদ্য সমাপ্ত বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণা করা হয়। আলোচনা সভায় বক্তারা অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, দ্বীনি শিক্ষার এ প্রাণকেন্দ্র জমানার গাউছুল আজম রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু’র অক্লান্ত পরিশ্রমে তিল-তিল করে গড়ে উঠেছে। নিভৃত পল্লীতে গড়ে উঠা এ প্রতিষ্ঠান ইসলামী শিক্ষার পাশাপাশি আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে নৈতিক বোধসম্পন্ন আলোকিত মানুষ তৈরির কেন্দ্রস্থল। একজন শিক্ষার্থীকে সুনাগরিক হিসেবে  গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজনীয় সকল সুযোগ সুবিধা এতে বিদ্যমান। আধুনিক কম্পিউটার ল্যাব, সুপরিসর লাইব্রেরি, উন্নতমানের হোস্টেল ব্যবস্থাপনা, সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য জেনারেটর ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া বিনা বেতনে অধ্যয়নসহ হোস্টেলে ফ্রি থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। মাদরাসার বর্তমান অধ্যক্ষ মহোদয়ের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা, অপরিমেয় আত্মত্যাগ ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে এ মাদরাসা দিনদিন বিশ্বের বুকে একটি আধুনিক ও ইসলামি শিক্ষার প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার জন্য প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি অভিভাবকের সহযোগিতা এবং শিক্ষার্থীদের জ্ঞানার্জনে আন্তরিক প্রচেষ্টা একান্ত প্রয়োজন বলে বক্তাগণ অভিমত ব্যক্ত করেন।

পরিশেষে মিলাদ-কিয়াম ও মোনাজাতের মাধ্যমে জাতির জনকসহ সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন আল্লামা মুফতি আনোয়ারুল আলম ছিদ্দিকী।